ছাত্র জীবনে সফল হওয়ার ১০টি উপায়

BanglaTeach
E-Haq
Digital Marketer at- BanglaTeach

E-Haq is the founder of BanglaTeach. He is expertise on Education, Health, Financial, Banking,...

Sharing is caring!

ছাত্র জীবনে সফল হওয়ার উপায়
ছাত্র জীবনে সফল হওয়ার উপায়

ছাত্র জীবনে সফল হওয়ার উপায় হিসেবে আজকে আমরা কার্যকারী ১০টি উপায় নিয়ে আলোচনা করবো, যেগুলো সঠিকভাবে মান্য করার মাধ্যমে একজন শিক্ষার্থী তাঁর ব্যক্তিগত জীবনে সফল হওয়ার সম্ভাবনা ৮০-৯৫% এ নিয়ে দাঁড় করাতে পারে।

ছাত্র জীবনে সফল হওয়া প্রতিটি ছাত্র-ছাত্রীর কাম্য আর সেটা হওয়াই সাধারণত উচিত। তবে ব্যক্তি-বিশেষ নগন্য কিছু কারণে অনেকেই নিজের অজান্তে নিজেদের ভবিষ্যৎ কে বলৎকার করে দেই কোনো রকম চিন্তা-ভাবনা ছাড়াই। ( ইংলিশ টু বাংলা উচ্চারণের গাইডলাইন সহ প্রতিবেদন লিখার নিয়ম সম্পর্কে জানুন )

প্রথমত ছাত্র জীবনে সফল হওয়ার জন্য একজনের নিকট যে জিনিসটি সবচেয়ে বেশি দরকার, সেটি হলো তাঁর স্ব-আগ্রহ। আগ্রহ ব্যতিত কোনো ভাবেই নিম্নোক্ত ১০টি উপায় কোনো ছাত্রই কাজে লাগাতে পারবে না, আর যে বিধায় ফলাফল সরূপ জীবনে সফল হওয়ার সম্ভাবনা কমে যায়। যাইহোক, সফলতার নির্দিষ্ট কোন মাফ-কাঠি নেই, তাই যে যার কর্মস্থল এবং কর্মে সফল হওয়াই হলো জরুরি বিষয়। তেমনটি ছাত্রদের পড়ালেখা অবস্থায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সফল হওয়াই হলো তাদের মূল উদ্দেশ্য। যা তাকে ভবিষ্যৎ এ আলোর পথে নিয়ে যেতে প্রচুর পরিমাণ সহায়তা করে থাকবে। আলোচনা বিলম্বিত না করে চলুন জেনে নিই ছাত্র জীভনে সফল হওয়ার ১০টি কার্যকারী উপায় সম্পর্কে।

ছাত্র জীবনে সফল হওয়ার ১০টি উপায়

ছাত্র জীবনে সফল হওয়ার ১০টি উপায়
ছাত্র জীবনে সফল হওয়ার ১০টি উপায়

ব্যক্তি জীবনে সফল হতে ছাত্র জীবনে সফল হওয়াটা অত্যন্ত দরকারী এবং ইফেক্টিভ একটি বিষয়। আর আমাদের ছাত্র সমাজের অধিকাংশের মধ্যে উক্ত ধারণাটি না থাকার কারণে প্রায় ক্ষেত্রে সমাজে একজন মেধাবী শিক্ষার্থীকেও দিন শেষে ব্যর্থ হতে দেখা যায়। তাহলে কিভাবে একজন ছাত্র তার পড়া-লেখার জীবনে সফল হবে? কোন কোন মেথড অনুসরণ করার মাধ্যমে তাঁর ছাত্র জীবনকে পূর্বের চেয়ে আরো সহজ করে তুলতে পারে? চলুন জেনে নেই ছাত্র জীবনে সফল হওয়ার উপায়গুলো-

রুটিন তৈরি করা

এখানে রুটিন তৈরি করা দ্ধারা শুধুমাত্র পড়া-লেখার রুটিন তৈরি করাকে বোঝানো হয় নি বরং সামগ্রিকভাবে আপনার দৈনিক জীবনের একটি পূর্ণাঙ্গ সঠিক রুটিন তৈরি করাকে বোঝানো হয়েছে। যা আপনার প্রতিদিনের অভিজ্ঞতার আলোকে খুব সহজেই তৈরি করে নিতে পারেন।

প্রতিদিন ঘুম থেকে উঠা হতে রাত্রে ঘুমাতে যাওয়ার আগ পর্যন্ত সম্পাদিত সকল কিছু আপনার রুটিনে যুক্ত থাকবে। যেমন- ঘুম থেকে উঠা, ফ্রেস হওয়া, খাওয়া-দাওয়া, বাহিরের কার্যক্রম, ঘুম, প্রার্থনা, পড়া-লেখা ইত্যাদি। এভাবে সুন্দর করে একটি রুটিন তৈরি করে নিতে হবে সফর হওয়ার জন্য আর অবশ্যই রুটিন মান্য করে প্রতিদিনের কার্যক্রম চালিয়ে যেতে হবে। তাহলেই ছাত্র অবস্থায় একজন ছাত্র খুব সহজেই সফল হতে পারবে।

নির্দিষ্ট কাজ করা

একই সময়ে একাধিক কাজ করা হতে বিরত থাকা। আমেরিকার একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে, যে সমস্ত শিক্ষার্থী/লোক একই সময়ে একাধিক কাজ করে তাদের তুলনায় নির্দিষ্ট একটি কাজ করা ব্যক্তিগণ বেশি প্রোডাক্টিভ। তাই চেষ্টা করবেন মাল্টিটাস্ক মূলক কোনো কাজ একই সময়ে না করার। ধরুণ, ছাত্র অবস্থায় পড়া-লেখা করার সময় হাত দিয়ে অন্য কাজ করা হতে বিরত থাকুন। এতে করে ছাত্র জীবনে সফল হওয়ার সম্ভাবনা খুব বেশি বেড়ে যায়।

ছোট ছোট অংশে পড়া-লেখা করা

গবেষণা দেখা গেছে যে, মানুষের উপর যখন প্রেসার হিসেবে বড় কোনো টাস্ক থাকে, তখন তাঁর কার্যক্ষমতা তুলনামূলকভাবে হ্রাস পায়। যে বিধায় একজন ছাত্রকে তাঁর বিদ্যালয়েল সিলিভাসের সমগ্র পড়ালেখাকে ছোট ছোট অংশে ভাগ করে নিতে হবে। এতে করে পড়ালেখায় তাঁর মনোযোগ পূর্বের চেয়ে বৃদ্ধি পাওয়ার পাশাপাশি কার্যক্ষমতাও বৃদ্ধি পাবে। জাপান সহ বিশ্বের নানা দেশের শিক্ষার্থীরা তাদের পড়ালেখার ক্ষেত্রে উক্ত টেকনিক অবলম্বন করে থাকে। যা ছাত্রদেরকে একঘেয়েমি থেকে বের করে নিয়ে আসে।

নিয়মিত ঘুম যাওয়া

প্রত্যেকটি মানুষের নিয়মিত ঘুম যাওয়া উচিত আর সেখানে শিক্ষার্থীদের তথা ছাত্রদের ক্ষেত্রে তা অবশ্যই। ছাত্র-জবনে রুটিনের একটি অংশে ঘুম-কে প্রাধান্য দিতে হবে। কোনো ভাবেই ঘুমকে ‍তুচ্ছ মনে করে রুটিন হতে বাদ দেওয়া যাবে না। রুটিনে ২৪ ঘন্টার মধ্যে অবশ্যই সর্বনিম্ন ৮ ঘন্টা ঘুমের জন্য সময় রাখতে হবে। কেননা ঘুমের মাধ্যমে মানুষের মস্তিষ্কের মধ্যে থাকা স্নায়ুগুলো আরো বেশি উদ্ধপিত হয় এবং মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা বৃদ্ধি পায়। ছাত্রদের ব্রেনকে আরো তীক্ষ্ণ করে কোনো একটি নির্দিষ্ট কাজের প্রতি মনোযোগ অনেক বৃদ্ধি করে। তাই নিয়মিত ছাত্রদের ঘুমাতে হবে।

নোট তৈরি করা

সিলিভাস থেকে বিদ্যালয়ে এবং বাসায় যে পড়াগুলো আমরা পড়ের্ থাকি, সেগুলো থেকে নিয়মিত আমাদের নোট নিতে হবে। আর তা পরীক্ষার জন্য আমাদের নিয়মিত পড়তে হবে। এখন অনেকে প্রশ্ন করতে পারেন যে, কেন নোট নিবো? এর উপকারিতা কি? নোট নেওয়া মানি হলো বিশাল একটি পড়াকে আমরা নিজেদের আয়ত্তে করে নিজেদের মতো করে ছোট করে নেওয়া। যা পরীক্ষার পূর্বের রাতে খুব সহজেই পুরো বই তথা সিলিভাসকে রিভিশন দিতে সহজ করে তুলে। আর এই কারণেই আমরা নিয়মিত আমাদের পড়া-লেখার উপর নোট তৈরি করবো।

নিয়মিত পড়াশোনা করা

ছাত্র জীবন মানেই হলো পড়াশোনা করা। আর এটা কেমন করতে হবে? অবশ্যই প্রচুর। কিভাবে আপনি সঠিক উপায় পড়াশোনা করবেন? এর জন্য আপনি বেশ কিছু কাজ করতে পারেন যেমন- পড়তে বসার পূর্বে অতিরিক্ত খাওয়া থেকে বিরত থাকবেন এবং পড়াতে বসলে যে যে উপকরণগুলো মূহর্তেই কাজে লাগবে, সেগুলোকে আপনার নিকট রাখা। এভাবে নিয়মিত পড়াশোনা করে যেতে হবে। আর তখনই ছাত্র জীবনে সফল হওয়ার উপায় হিসেবে উক্ত স্টেপগুলোকে কজে লাগাতে পারবেন।

পড়ার জন্য সঠিক স্থান নির্বাচন করা

মনোযোগ সহকারে পড়তে নির্দিষ্ট একটি পড়ার স্থান নির্বাচন করা সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। এর জন্য আপনাকে বেশ কয়েকটি জিনিস অনুসরণ করতে হবে। যেমন- বিরক্তকর শব্দ আসে, এমন জায়গা পরিহার করতে হবে। টিভি কিংবা অন্য কোনো মিউজিক সাউন্ড আসে, তেমন জায়গাও পরিত্যাগ করতে হবে। সর্বোপরি, নিরব এবং মনোযোগ বসানো সম্ভব এমন জায়গাকে পড়ার জন্য সিলেক্ট করতে হবে। এতে করে ছাত্রদের পড়ার সময় খুব সহজেই মনোযোগ বসবে এবং গভীর পড়ালেখা হবে।

গ্রুপ স্টাডি করা

ছাত্র জীবনে পরীক্ষায় ভালো রেজাল্ট করার জন্য এবং নিজের দক্ষতাকে আরো বৃদ্ধি করতে গ্রুপ স্টাডি করার বিকল্প অন্য কোনো কিছুই নেই। এর জন্য অনেকজন ছাত্র মিলে-মিশে একটি গ্রুপ করতে হবে। যেখানে আপনারা সবাই একই জিনিসি নিয়ে পড়া-লেখা করবেন। কেউ যখন কোনো কিছু বোঝতে বোধগম্য হবে না, তখন উক্ত গ্রুপে প্রশ্ন করার মাধ্যমে অন্যজনের থেকে জেনে নিবে।

অথবা আপনারা অনলাইনে একটি গ্রুপ তৈরি করতে পারেন। সেখানে আপনাদের সেইম পড়াকৃত ব্যক্তিদের জয়েন করিয়ে নিতে পারেন। এবং যেখানে আটকাবেন, সেখানে প্রশ্ন করবেন গ্রুপে, আর সাথে সাথে সেই প্রশ্নে উত্তর জেনে নিবেন। গ্রুপ স্টাডির মাধ্যমে খুব সহজেই পড়া শিখা যায় এবং অনেকদিন মনে রাখা যায়।

বেশি বেশি প্রশ্ন করা

কোনো একটি টপিকের গভীরে যেতে হলে এবং শিখতে হলে আপনাকে অবশ্যই প্রশ্ন করার অভ্যাসটি  তৈরি করে নিতে হবে। অন্যথায় তুলনামূলকভাবে অনেক পিছিয়ে যাবেন। কোনো একটি বিষয়ে না বোঝতে পারলে আপনাকে প্রচুর পরিমাণে প্রশ্ন করতে হবে। হোক সেটা নিজেকে নিজে অথবা ইনস্ট্রাকশন দেওয়া ব্যক্তিকে।

যেহেতু আপনি একজন ছাত্র, তাই পড়ালেখার কোনো অংশে যদি বোঝতে অসমর্থ হোন, তাহলে আপনার শিক্ষক-শিক্ষিকাকে প্রচুর পরিমাণে প্রশ্ন করতে হবে এবং না বোঝার অংশটুকু বোঝে নিতে হবে। যা ছাত্র জীবনে সফল হওয়ার অন্যতম একটি গোপন উপায়।

খাপ-খাওয়ানোর দক্ষতা অর্জন করা

সম্ভবত ছাত্র জীবনে সফর হওয়ার উপায়গুলোর অন্যতম একটি হলো নিজেকে যেকোনো পরিস্থিতিতে খাপ খাওয়ানোর দক্ষতা অর্জন করা। ছাত্রজীবন এমন একটি সময়, যখন একজন ছাত্রকে নানা রকম প্রতি-বান্ধকতার মুখামুখি হতে হয়। পারিবারিক,সামাজিক এবং কি কোনো কোনো ক্ষেত্রে রাষ্ট্রীয়। আর এই সব পরিস্থিতিতে নিজেকে খাপ খাওয়ানোর অভ্যাস করে নিতে হবে। অন্যথায়, ছাত্র জীবনে সফল হওয়ার ক্ষেত্রে এটিই হতে পারে আপনার প্রধান বান্ধকতা।

মূলত এগুলোই ছিল ছাত্র জীবনে সফল হওয়ার উপায়, যা নিজের মধ্যে প্রতিফলিত করে একজন ছাত্র-ছাত্রী তাদের জীবনকে সফল করে তুলতে পারে। যদিও আরো অনেকগুলো খুব কার্যকারী উপায় রয়েছে, তবে পাঠকদের মনোযোগ ও আনুসাঙ্গিক অন্য কিছু কারণে একটি আর্টিকেলের মধ্যে তুলে ধরতে ব্যর্থ। তবে অন্য আরেকটি আর্টিকেলের মধ্যে আমরা ছাত্র জীবনে সফল হওয়ার উপায়গুলো তুলে ধরবো আশা করি।

ছাত্র জীবনে সফল হওয়ার উপায় নিয়ে শেষ কথা

ছাত্র জীবনে সফল হওয়ার উপায় নিয়ে শেষ কথা

প্রতিটি মানুষের ক্ষেত্রে ছাত্র জীবন এমন একটি সময়, যা তাঁর পরবর্তী জীবন গঠনে প্রচুর পরিমাণে প্রভাবিত করে থাকে। আপনি যদি একজন সফল ব্যক্তির জীবনকে পর্যবেক্ষণ করতে যান, তাহলে আপনি বেশ কিছু তাঁর নমুনা পাবেন। এর মধ্যে অন্যতম একটি হলো ছাত্র জীবনে সফলতা অর্জন করা। আর ঠিক আপনিও যদি জীবনে উন্নতি করতে চান এবং জীবনকে সুখময় করে তুলতে চান, তাহলে ছাত্র জীবনে সফলতা অর্জন করার বিকল্প কিছু নেই। আর কিভাবে ছাত্র জীবনে সফল হওয়া যায়, সে নিয়ে আজকের আর্টিকেলে বিস্তর আলোচনা করেছি। আশা করি ছাত্র জীবনে সফল হওয়া উপায় সম্পর্কে জেনে পাঠকগণ বেশ চমৎকারভাবে উপকৃত হবে।

ছাত্র জীবনে সফল হওয়ার উপায় সম্পর্কিত প্রশ্ন-উত্তর

জীবনে সফল হতে পরিশ্রম করা কতটা জরুরি?

যখনই কোনো ব্যক্তিকে আপনি সফল দেখবেন, তখনই ভেবে নিবেন যে তাঁর সফলতার পিছনে একমাত্র সঙ্গি ছিল সঠিক পরিশ্রম। তাই জীবনে সফল হতে হলে আপনাকে প্রচুর পরিমাণ সঠিক পরিশ্রম করতে হবে।

ছাত্র জীবনে সফল হওয়ার জন্য জরুরি কোন জিনিসগুলো দরকার?

ছাত্র জীবনে সফল হতে হলে একজন শিক্ষার্থীর মধ্যে ধৈর্য, পরিশ্রম, আগ্রহ সহ অধ্যবসায় থাকতে হবে। তাহলেই সে ছাত্র জীবনে সফল হবে। আর নিয়মিত তা নিজের মধ্যে অটুট রাখতে হবে।

ছাত্র জীবনে সফল হওয়ার উপায় সম্পর্কে আরো জানতে

BanglaTeach
E-HaqDigital Marketer at- BanglaTeach

E-Haq is the founder of BanglaTeach. He is expertise on Education, Health, Financial, Banking, Religious and so on.

Leave a Comment